Tuesday , July 23 2019
Breaking News
পিপীলিকার গল্প
Home / কারেন্ট ওয়ার্ল্ড / পিপীলিকা অথবা পিঁপড়ে

পিপীলিকা অথবা পিঁপড়ে

আজ একটি মজার বিষয় নিয়ে কথা বলবো –

  "পিপীলিকা বা পিঁপড়ে "

পিঁপড়ে

পিঁপড়ে হচ্ছে এমন একটি প্রাণী, যে সব ধরনের প্রকৃতিক দুর্যোগ সহ্য করেও লক্ষ লক্ষ বছর ধরে পৃথিবীতে বেঁচে আছে। প্রায় ১২ হাজার ৫০০ প্রজাতির পিঁপড়ে রয়েছে পৃথিবীজুড়ে। যে কোনো প্রজাতিতেই সাধারণত তিন ধরনের পিঁপড়ে থাকে, রাণী পিঁপড়ে, সৈনিক পিঁপড়ে ও শ্রমিক পিঁপড়ে। রাণী পিঁপড়ে ও শ্রমিক পিঁপড়েরা মেয়ে হয়, অন্যদিকে সৈনিকের ভূমিকা পালন করে ছেলে পিঁপড়েরা। রাণী পিঁপড়ের একমাত্র কাজ হলো ডিম পাড়া। শুধু রাণী পিঁপড়েদেরই পাখা থাকে।

সারাজীবন ধরে রাণী পিঁপড়ে শুধু খায়, ঘুমায় আর ডিম পাড়ে। তার সেবার জন্য রয়েছে শ্রমিক পিঁপড়ে। এদের কাজ হলো ঘুরে ঘুরে খাবার সংগ্রহ করে আনা। আর সেই খাবার পাহাড়া দেয়ার দায়িত্ব থাকে সৈনিক পিঁপড়েদের ওপর। তাছাড়াও অন্য পিঁপড়েদের জায়গা জমি দখল করতে এবং নিজেদের বাসাবাড়ি রক্ষা করার দায়িত্বও সৈনিক পিঁপড়েদের। অন্যান্য পিঁপড়ে আক্রমণ করে, সৈনিক পিঁপড়ে খাবার ও ডিম নিয়ে আসে। সেই ডিম ফুটে যে পিঁপড়েরর বাচ্চারা বের হয় তারা ও কাজ করে। এটাই ওদের সমাজের রীতি।

পিপীলিকার গল্প

পিঁপড়েরা ঠিক মানুষের মতোই বেশ সামাজিক জীব। অর্থাৎ এরাও দল বেঁধে থাকে। এক একটা পিঁপড়ের বাসায় সাধারণত মাত্র একটা রাণী পিঁপড়ে থাকলেও শ্রমিক ও সৈনিক পিঁপড়ের সংখ্যা কয়েক লক্ষ থেকে কয়েক কোটি পর্যন্ত হতে পারে। সাধারণত এরা মাটির নিচে বাসা বানিয়ে থাকে।

আর একটা মজার বৈশিষ্ট্য রয়েছে পিঁপড়েদের। এক একটা পিঁপড়ে তার নিজের ওজনের চেয়ে ২০ গুণ বেশী ওজনের জিনিস বহন করতে পারে।পিঁপড়েরা কিন্তু কানে শোনে না। ফলে মাটির কম্পন অনুভব করেই তাদের কানে শোনার কাজ চালাতে হয়। এদের আবার ফুসফুসও নেই। তার বদলে রয়েছে সারা গায়ে অসংখ্য ছোট ছোট গর্ত। সেগুলো দিয়েই শ্বাসকার্য চালিয়ে নেয় ওরা।

About Bithi Sultana

Check Also

এক রাখালের গল্প

এক রাখালের জীবনে ঘটে যাওয়া কাহিনী ১ম খণ্ড এক রাখাল প্রতিদিন মাঠে গরু চরাত। তার …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *